Wikipedia TTT Conference 2017 in Bangalore

Wikipedia TTT 2017 - Participants Group Photo

TTT 2017 - Participants Group Photo

It’s always been an honor to be officially associated myself with any Wikipedia event. I am really fortunate enough that many times I had been officially associated with Wikipedia events. Not only that, I was also a co-organizer of Wikipedia Takes Kolkata-VI photo walk. It was one-day photo scavenging event, conducted here in Kolkata this year. Wiki is not only special for me, also very close to my heart. So, whenever there is a call from Wikipedia family, my first priority have always been Wiki.

January, this year I came to know about this annual conference, TTT 2017 (Train-The-Trainer) from Tito Dutta of CIS, and that would be held in Bangalore. That was not sufficed but the actual surprise was stored somewhere for me. I had little idea about Wiki TTT because I have already attended mini TTT and mini MWT sessions here in Kolkata this year and same also been organized by Tito along with the help of talented Wikipedian Mourya and Butterfly Ananya. It was a really fabulous moment for me when I received the invitation mail along with the air tickets.

CISA2KTTT17 - Conference Hall at Jayamahal Palace Hotel 01 CISA2KTTT17 - Jayamahal Palace Hotel
Wikipedia TTT 2017 -Here, I would like to tell you about what TTT 2017 (Train-The-Trainer) conference was all about. This would be helpful for you to understand what TTT is? TTT is basically a 3 days residential Wikipedia workshop cum conference to groom leadership skills among the Indian Wikimedia community. It held every year and organized by CIS-A2K. This year it was the fourth edition of it. If I stretch little further, they select two Wikipedians from each Indic language community for participation. It has been organized in Bangalore city from the beginning and the only venue gets changed every year. This edition of TTT was scheduled on 20-22 February 2017, at Jaya Mahal Palace Hotel. More importantly, Tito Dutta, this person from CIS was the responsible person to organize this grand and such a big event this year. Obviously, behind him had a rock solid team.

Day 0/0 – Ibrahim from Bangladesh Wikipedia, reached Kolkata by 19th evening and his flight to Bangalore was on next day morning with me. He had no proper arrangement in Kolkata for his stay. Tito has a beautiful power to convince and manage someone. He managed me somehow and gave me the responsibility to arrange something for Ibrahim. So, I went to Airport to bring him and he stayed at my residence for that night. Although, I took Ibrahim to nearby places to show him some heritages of Kolkata. We became friends before the conference. On 20th early morning, we left Kolkata for Bangalore. At Bangalore Airport I met Dr.Diptangshu Das for the first time. CIS had arranged a car for us and we three clubbed together, reached Jayamahal Palace hotel in the late afternoon. We were late due to a flight delay.

Organizers had arranged an Intro session in the evening at Jayamahal conference room. From the moment I stepped inside the huge conference room, I was extremely nervous to see the hall, full of participants. I was thinking how it would be possible for me to interact with them and how could I managed to take photographs. Being a Wikipedian I must say, it’s truly a tough job to talk in front of Wikipedians. Although, I’ve been into photography since I was a teenager. Since I got my first camera became obsessed with photography. I have a faith that my photography makes people happy and feel emotion. So, I started capturing the moments and as well as participating in all the activities simultaneously. After such a beautiful evening, I came to know from Tito, my passion for photography, made some people annoyed.

CISA2KTTT17 - Sweets 02 CISA2KTTT17 - Sweets 03 CISA2KTTT17 - Tanveer Hassan 01 CISA2KTTT17 - Participants 08

Day 01 – Sharp 9:30 AM, I reached the hall. The first session was introduction followed by icebreaker activities and on my turn, I talked about my Wikipedia projects, also about some future projects. There were many sessions planned for the day but Tito’s on event planning, Ashwin’s Essentials of conducting an event, Manasa and Pavan’s grant structure, Tanveer’s Global metrics and WCI presentation of Dr. Manavpreet were outstanding. I do not mean other sessions were not so good but equally good. Honestly speaking, all the sessions just enriched me. They planned and executed each session so well with hands-on activities that made it so interesting, meaningful and enriching.

CISA2KTTT17 - Participants during Presentation 02 CISA2KTTT17 - Participants 03 CISA2KTTT17 - Participants during Lunch 02 CISA2KTTT17 - Participants during Lunch 03

The interaction with other Wikipedians during Tea Break and Lunch Break and during leisure time after the end of the day one conference were also enriching. Interaction and exchanging ideas, the experience is always good to uplift yourself. But the best part of this conference was we were all from diverse background and that at least helped me so much to widen my thought process. One more thing, before this conference, the organizers told each participant to bring popular sweets of their respective state. It was a wonderful experience and scope to taste sweets from the different states of our country. I ate so much of sweets but what Frederick Noronha brought from Goa was best of the lot apart from sweets of my city.

Day 02 – We started off the second day with a field trip to Cubbon Park. Before I narrate the day, would like to share a small incident. Before we leave for Cubbon Park, Tanveer called me and asked me to change my hotel room. I asked him about the reason for the change but he answered me, it’s a routine process. But this was not the actual reason because I know the reason. I was not at all surprised, It was quite obvious and I was prepared for it. Because I am aware of my snoring habit. My room partner for the day one was Balaji Jagathees and he couldn’t bear my snoring.

CISA2KTTT17 - Participants Boarding the Bus for the Field Trip 01 CISA2KTTT17 - Shyamal Lakshminarayanan talking about Biodiversity 01 CISA2KTTT17 - Participants during Field Trip at Cubbon Park 04 CISA2KTTT17 - Participants during Field Trip at Cubbon Park 03

Although, the bus was ready to move to Cubbon park and we were super excited. This session was on contributing to those article on biodiversity in Wikipedia and it was conducted by Shyamal and Ashwin. But honestly speaking I had no idea about spiders, trees, ants or many more things which were included in this session. Being a nature lover it was a good scope for me to learn about nature but unfortunately, due to lack of knowledge on this subject, I lost interest in this session. I found that many participants left the place and went to see the nearby attraction of Bangalore. Sorry, Shyamal and Ashwin, I like to confess here, I have also gone to see the Vidhana Soudha of Karnataka in the middle of the session. It was fun and very tiring day.

Day 03 – Topics were nitty gritty. The Masterclass III consists of many things, panel discussion on Thematic groups and user groups, Wikipedia Commons by Shyamal, Wikisource by Sumita Roy, Gender Gap Research and Women in Red by Elisa Ting-Yi Chang, WikiProject India in En:WP, Wikipedia Asian Month, 100 Wiki Days, Wiki Loves Food, Village Project, Wikimedia Education Program and Wikimania by Subhashish. etc. There were so many times that I finally was able to understand things that I really wanted to know.

CISA2KTTT17 - Ravishankar Ayyakkannu 01 CISA2KTTT17 - Participants 06 CISA2KTTT17 - Tito Dutta and Sumita Roy Dutta 01 CISA2KTTT17 - Postcards Collage

When the second day came to a close and it was time to leave. I wasn’t sad but felt an overwhelming feeling of support and encouragement from everyone from the participants to organizers. After the dinner, most of them left out and few stayed back to attend MWT2017. I finished my dinner and supposed to follow my own travel plan. I left my laptop and some belongings with Tito, as I had to get back once again to Bangalore. As soon as I walked outside, I sat in the car for a minute… closed my eyes and started thinking of how amazing and exuberant experience it was. The experience that I had been looking forward for years. I took a moment to think about my travel plan to Hampi, this suddenly engrossed me.

CISA2KTTT17 - Mohammad Ibrahim Husain 01 CISA2KTTT17 - Suyash Dwivedi 02 CISA2KTTT17 - Pavan Santosh 01 CISA2KTTT17 - Sailesh Patnaik 01 CISA2KTTT17 - Suresh Khole 02 CISA2KTTT17 - Preeti Chabra 02 CISA2KTTT17 - Nistha Ranjan Dash 01 CISA2KTTT17 - Krishna Chaitanya Velaga 02

It was really special to be in Wikipedia’s conference alongside other Wikipedians from all over the country and Wikipedian from neighboring country. We bonded over those three days. We laughed together, exchange ideas, and even got super real with each other. We supported each other when someone spoke or even argued with them. Sometimes they shared personal stories. Some offered ideas and suggestions when people asked for advice and in fact, I also advised some of them. The most memorable moment for me was when I interviewed by Frederick Noronha regarding my work and it was the first interview of my life. It was really just really outstanding place to be in. I didn’t take pages and pages of notes, all I can say it enriched me in true sense. I had spent many excellent moments or can say that totally makes sense” moments. Light bulbs going off in my head, and firecrackers were exploding with ideas. Now, I think the conference was absolutely necessary for me to grow my Wiki Skills.

Special Thanks – Tito Dutta Thank you so much from the core of my heart,
Sumita Di Thank you so much, you are always ready to help anyone.
Ibrahim missing your smile and thanks for helping me to open my eyes.
Dr.Diptangshu Thank you so much for exchanging some brilliant ideas.
Suyash Dwivedi Thank you so much for exchanging ideas.
Royson, Tanveer, Pavan Santosh, Manasa, Ting-Yi, Fredrick Noronha, Ashwin Baindur, Sailesh Patnaik and Dr. Aarya Joshi.


Copyright © BongBlogger

you can share this post subjects to the conditions that please give due credit to Author Indrajit Das and do not alter before sharing. Request do not Plagiarize.

If you found your photographs here and have issues with that please E-mail me with your requests, I will remove your photographs from public domain.

গরু রচনা – গরু ডাকে, হে হাম্বা হাম্বা হাম্বা

Cow

But people love a hypocrite, you know, they recognize one of their own, and it always feels so good when someone gets caught with his pants down and his dick up and it isn’t you.

― Stephen King

 

গরু রচনা – ছেলেবেলা বা মেয়েবেলা

গরুর চারটে পা, একটা লেজ আর লেজের নিচে একটু কালো কালো চুল, একটা মাথা আর মাথার ওপর দু’টো শিং। গায়ের রঙ সাদা, কালো, সাদার ওপর ছোপ ছোপ ও নানান রঙের হয়। এই অব্দি লিখে ভবো (পাগলা) কাইত। এরপর কি লিখবে বুঝতে পারছেনা বেচারা। হঠাৎ করে মনে পরলো গরু দুধও দেয়। লেখা শুরু হল আবার, গরু দুধ দেয়, আর সেই দুধ খেয়ে লোকের উপকার হয়। এরপর তো রচনা আর এগোচ্ছেনা, ভবোর কলম আটকে গেছে কাটা রেকর্ডের মতো । কি করে? আর কি করে? কিচ্ছু করার নেই তোর। শুধু একটু বড় হতে হবে তোকে হাতে পায়ে। তাহলেই, সাঙ্গ হবে খেলা আর রচনা।

গরু দর্শন

আস্তে আস্তে ভবো একটু বেড়ে উঠতেই, এই রচনারও আকার আকৃতি, প্রকৃতি, প্রকৃত রূপে পরিবর্তনের মুখে। যে গরু তাকে ছেলেবেলায় এতবার ফ্যাঁসাদে ফেলে মজা দেখেছে, সেই আজ তার মায়ের দয়ায় ও শিক্ষায় ভগবান রূপে মর্তে অবতীর্ণ। যিনি মাঝে মাঝে তার বাড়িতে আসেন, বিশেষ রঙধারি এক লোক তার মগজের আলকে আলকিত আজ ভবো।

আসলে, বর্তমানে এতগুলি গরু বলয়ের জন্ম হয়েছে বা আমদানি করা হয়েছে, যা দেখে শরীরের জ্বলন বোধহয় স্বাভাবিক। সেই স্বাভাবিক বৃত্তি আমাকে আজ ভবোর মুখোমুখি এনে দাঁড় করাল। প্রথমে, সে তো মানতেই চাইল না আমি যে হিন্দু ঘরের সন্তান। মুসলিম হলে কাফের, আর হিন্দু হলে মুসলমান বানানো বড্ড সহজ কাজ আজকাল।

আমি ও ক্যালানে আমি

রোজ সকালে আমি আমার বাড়ির কাছে এক পার্কে যাই, দীর্ঘ ২৫-৩০ বছর ধরে হবে। সেই সুত্রেই নানান মানুষের আসা যাওয়া, এক গ্রুপ ভাঙ্গা থেকে শুরু করে নানান গ্রুপের জন্ম মৃত্যু অনেকটাই উপলব্ধি করেছি। কিছু বছর হল এক নতুন গ্রুপের সাথে আমার সকালের ব্যায়াম করার সুবাদে ঘর করা। নানান হাসি, মজা, তর্ক বিতর্ক, বিশেষত রাজনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে দেশ উদ্ধার করা, এই সব কম্ম সকাল সকাল করার অভ্যাস তৈরি হয়েছে। দেশ উদ্ধারকারীদের যে জ্ঞান, তা গরুর চারটে পা, একটা লেজ আর লেজের নিচে একটু কালো কালো চুল পেরিয়ে কোন এক অন্ধকার গলিতে গিয়ে থেমেছে তা বোধহয় আমি বুঝতে পারিনি। তাই আত্মশুদ্ধিকরণের সাথে সাথে কবে যে আমি তাদের কাছে গরুখেকো কাটা মাল হয়ে উঠেছি তা আমার বোঝার বাইরে ছিল। আসলে টেনিয়াদের ভাষায় ‘আকাশে পাখি দেখে পালক গুনে দেবো’ এই কনফিডেন্স যে কতটা আমার জন্য অসত্য ছিল তাও আমি বুঝে উঠতে পারিনি। কোন এক অজ্ঞাত কারণে কয়েক মাস যাবত ঋকবেদ, মনুসংহিতা, বা চরকসংহিতা এই ধরনের প্রাচীন মাল পত্তর ঘাটাঘাটি শুরু করলাম। শুধু কি তাই, রামায়ণ বা মহাভারতের যৌনতা আর হিংস্রতা আমাকে ভাবাতে শুরু করে দিল। এর নানান ছাপ পরতে শুরু করল আমার জীবনে। আর এরই সুত্র ধরে সকালের ব্যায়ামের সাথে সাথে চলতে থাকল এই নিয়ে কথা বার্তা। প্রথম দিকে সবার কথা শুনে যা মনে হল রামায়ণ বা মহাভারতও নাকি বেদ। সে যাই হোক, এই ধরনের মানুষ গুলো প্রথম দিকে খুশি ছিল যে আমি আবার হিন্দু হবার চেষ্টা করছি, কারণ আমি বেদ পড়ছি।

আমি ও বর্তমান বালের সমাজ

গণ্ডগোলটি পাকলো সেদিন, যেদিন আমি, ” গোমাংস এক সময় হিন্দুরা খেত” এবং এক সময় কার্যত বিবেকানন্দও সমর্থন করেছেন এই বক্তব্যটি, সেটি বলাতে । এই শুনেই এক দল বন্ধুর চেহারা আমার কাছে মুহূর্তের মধ্যে ভয়ঙ্কর অচেনা হয়ে গেলো। কথা দিলাম পরের দিন সকালে ঋকবেদ থেকে কিছু শ্লোক তাদেরকে শোনাব যা আমার বক্তব্যকে সমর্থন করে। কথা মতো, তার পরের দিন সকালে নির্দিষ্ট সময় সকলে প্রায় জনা ২৫/৩০ এসে হাজির হল। তাছাড়াও কিছু অচেনা মুখ দেখলাম এদের মধ্যে। এর মধ্যে স্বয়ং সেবকদেরও কিছু কিছু মুখের উকি দেখা গেলো। কথা ছিল প্রথমে ইংলিশে পড়ে তার পর সেটাকে বাংলায় অনুবাদ করে শোনাতে হবে, আর যদি পারি খানিক হিন্দিতে ট্রান্স্‌লেট করে দিলে ভালো হয়। ইংলিশে পড়া শেষ হতে না হতে আমি রোষের আগুনে পরলাম। এই প্রথম হিন্দুদের ফতোয়া দিতে দেখলাম। ফতোয়াটা মনে হল মানুষের ধর্মের ওপর নির্ভর করেনা, ওটা মানুষের অধিকার। ‘কনডোম ব্লগার’ তখন সামাজিক বয়কটের মুখোমুখি। যাকে ধরে ফেলা হল “হিন্দুস্তান কি জয়” এবং “হর হর মহাদেব” বলতেই হবে। না, আমি বলিনি, বলেতেই পারতাম হয়তো, জেদে বললাম না। তাছাড়া, আমার দেশের তিনটে নাম “ইন্ডিয়া”, “ভারত” আর “হিন্দুস্তান”। সত্যি বলতে হিন্দুস্তান আমার দেশের নাম আমি মানিনা। আমার দেশ ভারত এবং আমি ভারতের সন্তান।

সে যাই হোক, ভবোকে আমার সেই সকালের অভিজ্ঞতা শোনালাম। আর, সেদিন যা যা তাদেরকে শুনিয়েছিলাম, সেটাই ভাগ করতে চাইলাম ভবোর সাথে। শুরু করলাম ভবোকে বলা।

ঋকবেদ
Mandala 8/Hymn 43/11
– Let us serve Agni with our hymns, Disposer, fed on ox and cow, Who bears the Soma on his back.

Mandala 8/Hymn 43/17 – My praises, Agni, go to thee, as the Cows seek the stall to meet, The lowing calf that longs for milk.

Mandala 10/Hymn 16/7 – Shield thee with flesh against the flames of Agni, encompass thee about with fat and marrow, So will the Bold One, eager to attack thee with fierce glow fail to girdle and consume thee.

Mandala 10/Hymn 79/6 – Agni, hast thou committed sin or treason among the Gods? In ignorance I ask thee. Playing, not playing, he gold-hued and toothless, hath cut his food up as the knife a victim.

Mandala 10/Hymn85/13 – The bridal pomp of Surya, which Savitar started, moved along.
In Magha days are oxen slain, in Arjuris they wed the bride.

Mandala 10/Hymn 85/14 – When on your three-wheeled chariot, O Asvins, ye came as wooers unto Surya’s bridal, Then all the Gods agreed to your proposal Pusan as Son elected you as Fathers.

Mandala 10/Hymn 87/16 – The fiend who smears himself with flesh of cattle, with flesh of horses and of human bodies, Who steals the milch-cow’s milk away, O Agni,-tear off the heads of such with fiery fury.

Mandala 10/Hymn 87/17 – The cow gives milk each year, O Man-regarder: let not the Yatudhana ever taste it. If one would glut him with the biesting, Agni, pierce with thy flame his vitals as he meets thee.

Mandala 10/Hymn 87/18 – Let the fiends drink the poison of the cattle; may Aditi cast off the evildoers.
May the God Savitar give them up to ruin, and be their share of plants and herbs denied them.

Mandala 10/Hymn 87/19 – Agni, from days of old thou slayest demons: never shall Raksasas in fight o’ercome thee. Burn up the foolish ones, the flesh-devourers: let none of them escape thine heavenly arrow.

Mandala 10/Hymn 89/14 – Where was the vengeful dart when thou, O Indra, clavest the demon ever beat on outrage? When fiends lay there upon the ground extended like cattle in the place of immolation?
মনু সংহিতা
Chapter V – 18 – The porcupine, the hedgehog, the iguana, the rhinoceros, the tortoise, and the hare they declare to be eatable; likewise those (domestic animals) that have teeth in one jaw only, excepting camels.

Chapter V – 30 – The eater who daily even devours those destined to be his food, commits no sin; for the creator himself created both the eaters and those who are to be eaten (for those special purposes).

Chapter V – 35 – But a man who, being duly engaged (to officiate or to dine at a sacred rite), refuses to eat meat, becomes after death an animal during twenty-one existences.

যুক্তিহীন চুলকানি

মাঝে মাঝেই, ওর মধ্যে চরম উত্তেজনা ও আমার প্রতি রাগ দেখতে পেলাম। এত সহজে ওকে পড়ে শোনাতে পারিনি, অবশেষে সবটুকু পড়ে শোনাতে পেরেছিলাম অবশ্য। ও মুখ খুলল, ‘পারবেন কোরান নিয়ে কোন কথা বলতে?‘ ‘দম থাকলে লিখে দেখান, ক্ষমতা থাকলে তিন তালাক নিয়ে মুখ খুলুন‘ মেরে মুসলিমরা গাঁড় ফাটিয়ে দেবে। ওকে বললাম, হিন্দু ধর্মের যে জায়গা গুলো ছুঁয়ে গেলাম এর অনেক পরে ইসলামের জন্ম। আর সত্যি বলতে, কোরাণ যে আসমানি কিতাব নয়, তা যেকোন শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ বোঝে বা জানে। প্রচুর কিছু শুদ্ধিকরণের পর বিশেষ বিশেষ টেক্সট্‌ বা প্রচুর কিছু অ্যাডপ্ট করা হয়েছে এই ধর্মে। যেমন আমরা খেতাম, ছেড়ে দিয়েছি। অনেক পরে ওরা জন্ম নিয়েছে, ওরা খাওয়া শুরু করেছে। আর একটা কথা “নিকাহ্‌” দেখে ভাই সব কিছু বুঝতে বা জানতে যেও না। গরু থেকে শুয়োর হতে পারতো? গরু থেকে কি ভাবে তিন তালাকে আসতে পারে? এবার ওর আরেক প্রশ্ন “পারবেন কোন মুসলিমকে শুয়োর খাওয়াতে? অনেক প্রগতিশীল মুসলমান আমার দেখা আছে”। সত্যি বলতে, পারবো না। আসলে, যতটুকু আমার জানা আছে, শুধু ইসলামে নয় খ্রিষ্টধর্মেও ২-৩ জায়গায় শুয়োর খাবার কথা বারন করা আছে। কিন্তু অনেক খ্রিস্টান কিন্তু শুয়োর খায়, আমি জানি, মুসলমানরা কিন্তু খায়না। অন্তত আমার দেখা কোন মুসলমানকে আমি শুয়োর বা পর্ক খেতে দেখিনি। কারণ হিসাবে আধুনিক বা তথাকথিত প্রগতিশীল মুসলমানেরা যে বিজ্ঞান সম্মত কারণ, যেমন ফিতা ক্রিমি বা নানান রোগের কথা শুয়োর খাবার ফলে হতে পারে বলে, অন্তত তা আসল কারণ নয় বলে আমার মনে হয়। আসল কারণ ওই “হারাম” হয়ে থেকে যায়। অন্তত, যা আমি নিজে উপলব্ধি করেছি সাধারণ ভাবে হালাল ছাড়া মাংস না খাওয়া বা ধর্মীয় গোঁড়ামি অনেকটাই বেশি বলে আমার মনে হয়। ঠিক যেমন ক্রিস্টান হলে গরম কালেও স্যুট পরতেই হবে এবং বাঙ্গালির সাথে কথা বললেও তাকে ইংরেজিতেই কথা কইতেই হবে আরকি।

তিন তালাক

বিয়ে হলে তবেইতো তালাক হবে, তাই তো? তাই একটু বিয়ে দিয়ে ঢুকে তালাক দিয়ে বেড়িয়ে যাবো। আসলে, হিন্দুদের বিবাহ হল ঐশ্বরিক ঘটনা আর নিকাহ্‌ বা মুসলিম বিয়ের ভিত্তি হল এক ধরনের চুক্তি বর ও বউয়ের মধ্যে। যে চুক্তিটিকে নিকাহ্‌নামা বলা হয়, যার মধ্যে অনেক শর্ত থাকে। অনেকটা, আগে বাঙ্গালদের (হিন্দু) মধ্যে “পাটিপত্র” বলে একটা ব্যবস্থা চালু ছিল, খানিকটা এই ধাঁচের বলা যেতে পারে। যাইহোক, নিকাহ্‌নামা তে একটি বিষয় বাধ্যতামূলক, তা হল, “মেহের্‌” যা বর বউকে দিয়ে তবেই সে মেয়েটিকে বিয়ে করতে পারবে। বৌ যদি চায় তবে তা ছেড়ে দিতেও পারে(সাধারনত তা হয়না)। কোরাণ অনুযায়ী বা নবীর নির্দেশ মতো বিবাহ বিচ্ছেদ কে বলা হয় “তালাক-ই-সুন্নাহ্‌“। আরেক ধরনের তালাক যা নবীর অনেক পরে ইসলামে অ্যাডপ্ট করা হয়েছে তা হল “তালাক-ই-বিদ্দাহ্‌” যার মানে হলে সঙ্গেসঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ। এই তালাক ফোনে বা এসএমএস করে বিবাহ বিচ্ছেদ করা যায়। এই তালাকেরই বিরোধিতা করা হচ্ছে এবং তালাক-ই-সুন্নাহ্‌ কে লাঘু করার দাবী উঠেছে। কিন্তু সাধারণ ভাবে মানুষ ভাবে তালাক-ই-বিদ্দাহ্‌ অর্থাৎ সঙ্গে সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদই ইসলামে আছে। এটা সম্পূর্ণ ভুল ধারনা। যদি আপনি তালাক-ই-সুন্নাহ্‌ কি জানেন তাহলে বুঝতে পারবেন, ইসলামে একজন বিবাহিত মহিলা কতটা নিরাপদ।

তাই এবার তালাক-ই-সুন্নাহ্‌ নিয়ে আমার যা জানা তা আপনাদের বলি। নবীর নির্দেশ বা মতে, রেগে গিয়ে তালাক দেয়া যাবেনা। কোরাণ বলে, প্রথম পর্যায় – বর ও বৌ এর মধ্যে কথা বলে সমস্যার সমাধান করতে হবে, একে বলা হয় “ফাইযু-হুন্নাহ্‌“। যদি তারপরেও সমস্যা না মেটে, দ্বিতীয় পর্যায় – তবে, দুজনের মধ্যে নানান যে দাম্পত্য সম্পর্ক তার থেকে বিরত থাকতে হবে, যতক্ষণ না সব কিছু মিটমাট হয়ে যায়। তারমানে, দুজন শারীরিক ভাবে আলাদা আলাদা থাকবে, এটা করা হয় এই জন্য যাতে তারা আবার এক হয়, একে বলা হয় “ওয়াহ্‌জুরু-হুন্নাহ্‌“। যদি এই পর্যায়েও সফল ভাবে সম্পর্ক পুনরায় জোড়া না লাগে, তৃতীয় পর্যায় – তবে, বরকে উদ্যোগ নিয়ে তার স্ত্রী কে মানাতে হবে বা তার সাথে পুনরায় সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করতে হবে, একে বলা হয় “ওয়াযরিবু-হুন্নাহ্‌“। যদি তিনটি পর্যায়েও সম্পর্ক ঠিক না হয়, তবে সালিসি সভা, অর্থাৎ দুটি পরিবার থেকে গুরুজনেরা বসে তা মেটাবার চেষ্টা করবে। এই চারটে পর্যায়েও যদি সম্পর্ক কিছুতেই ঠিক না হয়, তবে বর একবার তালাক বলবে। আরেকটি তালাক বলার আগে বরকে বউয়ের ঋতু বা ইদ্দাহ্‌ শেষ হওয়া অব্দি অপেক্ষা করতে হবে। এই ইদ্দাহ্‌ (মনে রাখতে হবে ইসলাম অনুযায়ী ইদ্দাহ্‌ তিন মাসিক কোর্স বলে মনে করা হয়) এর আগে দু’টির বেশি তালাক দেয়া যাবেনা। তার মানে এই তিন মাসের মধ্যে বর তৃতীয় তালাকটি বলতে পারবেনা। এখানে মনে রাখতে হবে, যদি স্ত্রী এমন বয়সে থাকে যেখানে তার রজোবন্ধ হয়েছে তবে, অর্থাৎ ইদ্দাহ্‌ এর সময় তিন মাস। আর যদি স্ত্রী গর্ভবতী হয় তাহলে, যতক্ষণ না তার সন্তান জন্মাচ্ছে ইদ্দাহ্‌ সময়কাল ততদিন পর্যন্ত। এর পরেও যদি বর ও বৌ এর মধ্যে সমস্যা থেকে যায়, তবে বর তৃতীয় তালাক বলতে পারে। এই ক্ষেত্রে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যাবে।

(শালা) হারাম ও শুয়োরের কথা

আগেই বলেছি ইসলামে এবং খ্রিষ্টধর্মেও শুয়োর খাওয়া মানা। যা নিষিদ্ধ তাকেই ইসলাম অনুযায়ী “হারাম” বলে চিহ্নিত করা হয়। এখান আমি বাইবেল থেকে শুয়োর সম্পর্কিত কিছু তথ্য উদ্ধৃতি দিলাম।

Bible – Book of Leviticus chapter 11 verse 7
New International Version
And the pig, though it has a divided hoof, does not chew the cud; it is unclean for you.

King James Bible
And the swine, though he divide the hoof, and be cloven footed, yet he cheweth not the cud; he is unclean to you.

Bible – Book of Leviticus chapter 11 verse 8

New International Version
You must not eat their meat or touch their carcasses; they are unclean for you.

King James Bible
Of their flesh shall ye not eat, and their carcasses shall ye not touch; they are unclean to you.

Bible – Book of Deuteronomy chapter 14 verse 8

New International Version
The pig is also unclean; although it has a divided hoof, it does not chew the cud. You are not to eat their meat or touch their carcasses.

King James Bible
And the swine, because it divideth the hoof, yet cheweth not the cud, it is unclean unto you: ye shall not eat of their flesh, nor touch their dead carcase.

Bible – Book of Isaiah Chapter 65 verse 2-5
King James Version
2 – I have spread out my hands all the day unto a rebellious people, which walketh in a way that was not good, after their own thoughts;

3 – A people that provoketh me to anger continually to my face; that sacrificeth in gardens, and burneth incense upon altars of brick;

4 – Which remain among the graves, and lodge in the monuments, which eat swine’s flesh, and broth of abominable things is in their vessels;

5 – Which say, Stand by thyself, come not near to me; for I am holier than thou. These are a smoke in my nose, a fire that burneth all the day.

বঞ্চিত-বাঞ্চোত

এবার একটি বঞ্চিত বাঞ্চোতের কথা না বললে আমার মুক্তি নেই বা লেখাটি শেষ করা অন্যায় হবে। এখন যে শর্মার কথা বলব তার বাবা ও মা ময়ূর ছিল এবং তাদের সন্তান তাই গরু হয়ে জন্মেছে। আমি সেই দুই ময়ূরের কথা বলছি যারা সেক্স করেনি। যাদের চোখের জল থেকে জন্ম নিয়েছে “চাঁদের” মতন শর্মা কিন্তু জাত গরু। তাই তিনি গরু হয়ে যা সামাজিক, আধ্যাত্মিক বা বৈজ্ঞ্যানিক চেতনার কথা শোনালেন যা শুনে সমগ্র গরু জাতি গর্বিত এবং অবশ্যই গর্ভবতীও হয়ে উঠেছে।

শুধু কি তাই, ৩৩ কোটি দেব-দেবী ওনার দেহে বাস করে (কতো বড় দেহ রে তোর?)। ওনারটা কি বক্র, খুদ্র, শিঘ্রপতন হয় কি? না, একেবারেই না, বরং ওনার ওখান দিয়ে যা বেরোয় মানে মুত, তা যদি আপনি কোল্ড ড্রিঙ্কের মতন পান করেন তাহলে আপনার লিভার (জনি লিভার নয়), হার্ট, মন এবং আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যাবে। শুধু কি তাই, আপনি বুড়ো হবেন না। তাহলে ডঃ লোধকে দেখাবার প্রয়োজন মিটে গেলো। এখানে মুত খাবেন আগের জন্মের পাপ পোঁদ দিয়ে বেড়িয়ে যাবে। কোন এক রাশিয়ান বিজ্ঞানী (এটা রাশিয়ার কোন বঞ্চিত, নাম বলেনি) ওনার কানে কানে বলে গেছেন, ওনার হাগা মানে গোবর বাড়ির দেয়ালে লাগালে মানে ভালো করে গাতন দিলে রেডিয়েশন (কোন ধরনের রেডিয়েশন বলতে ভুলে গেছে) থেকে মুক্তি। ওনার হাগা এখানেই থেমে নেই, টন টন বায়োগ্যাস উৎপাদন করে কোটি কোটি গাছের প্রাণ বাঁচাতে পারে (আমার একখান প্রশ্ন, হাগা পেলে উনি চেপে চেপে কোটি কোটি গাছের গোঁড়ায় গিয়ে গিয়ে কি হেগে আসবেন?)। উনি হাক পারলে মানে হাম্বা হাম্বা করলে বায়ুর কি সব যেন মরে যায়। আপনার বাড়িতে কেউ যদি শ্বাসকষ্টে ভোগে, যদি অক্সিজেনের প্রয়োজন হয়? চিন্তা করবেন না ওনার কাছে নিয়ে যেতে পারেন উনি অক্সিজেন পান করেন আবার অক্সিজেন ছাড়েন। তাই একটি নল ওনার কোথাও লাগিয়ে টানলেই হবে।

কবি প্রনাম

আমার সর্বশেষ নিবেদন, এক বিখ্যাত মানুষের লেখা দু লাইন দিয়ে। ক্ষমা করবেন তার নাম না মনে পরায় লিখতে পারলাম না এটি কার লেখা।

হরে করো কমবা
গরু ডাকে হামবা।
গর্জন করে অম্বা,
মা ডাকেন বুম্বা।
হরে করো কমবা
ডোব্বা ডোব্বা রোব্বা,
হুড় হুড় করে হুম্বা,
তোবা তোবা আব্বা।

উৎস –
১) The Rig Veda – Ralph T.H. Griffith
২) The Laws of Manu – George Bühler
৩) http://biblehub.com
৪) The Emphasised Bible, translated by Joseph Bryant Rotherham, 1916
৫) কোরান
৬) wright-house অনলাইন কোরাণ।
৭) The Bible, the Qur’an and Science by Maurice Bucaille (Author), Alistair D. Pannell (Translator)
8) Triple Talaq: An Analytical Study By Furqan Ahmad


পুনশ্চঃ
– যাদের অদৃশ্য উপকার ছাড়া লেখাটা হয়তো সম্ভব হতোনা তারা হলেন ত্বিষা মুখার্জি সরকারপ্রসাদ বিশ্বাস বা মন মাস্তুল। অসংখ্য ধন্যবাদ দু’জনকে।

স্বত্ব © বংব্লগার আপনার যদি মনে হয় বা ইচ্ছা হয় তাহলে আপনি এই লেখাটি শেয়ার করতে পারেন কিন্তু দয়াকরে এর লেখকের নাম ইন্দ্রজিৎ দাস উল্লেখ করতে ভুলবেন না। ভুলে যাবেননা চৌর্যবৃত্তি মহাদায়, যদি পড়েন ধরা।

যদি আপনি আপনার নিজের ছবি এখানে দেখতে পান এবং তাতে যদি আপনার কোন রকম আপত্তি থাকে তাহলে অবশ্যই ই-মেল করে আপনি উপযুক্ত প্রমাণসহ আপনার দাবি জানাতে পারেন।দাবিটি ন্যায্য প্রমাণিত হলে, সে ক্ষেত্রে ছবিটি সরিয়ে ফেলা হবে।